নতুনদের জন্যে কয়েকটি কথা!

নতুনদের জন্যে কয়েকটি কথা!

অনেকেই দেখি বলে বায়ার ফ্রী কাজ করিয়ে নেয়। অনেক সেলার ফ্রী কাজ করে দেয়। কথা মিথ্যা না। যদি অনেক কাজের আশা থাকে তাহলে দুই একটা ফ্রি করে দিলে আপনার কোনো ক্ষতি নেই।
আপনার কাজ যদি ভালোই হয় তাহলে ওই বায়ার এই ৫ ডলারের ফ্রী কাজ নিয়ে ভেগে যাবেনা। তাকে ফিরে আসতেই হবে।
কারণ তারা সার্ভিস নেয় যেন তাদের সার্ভিস আরো ভালো হয়। তবে এটাও ঠিক যে আজকাল মার্কেট অনেকটা নষ্ট হয়ে গেছে। টাকা দিয়ে কোর্স করেই অনেকে এই মার্কেটে ঢুকে পরে। প্রথম দিকে এতজনের ভিড়ে যখন অরিজিনাল কাজ না পায় তাহলে হয়তো আপনিও তার জায়গায় দুই একটা ফ্রি কাজ করে দিতেন।

* আমি আমার গত ৫ বছরের ফ্রীল্যানসিং -এ এমন কাউকে পাই নাই যে ফ্রি কাজ চাইছে। আমি বলি, আমি আপনাকে একটা পেইড স্যাম্পল বানিয়ে দিবো, কিন্তু ফ্রি না। সাথে আনলিমিটেড মোডিফিকেশন। যতক্ষণ না পর্যন্ত ইউ আর হ্যাপী।

* আমি এই পর্যন্ত নানা কারণে টোটাল ৩ তা ফাইভার একাউন্ট চেঞ্জ করছি, কিন্তু কোনোদিন কোনটা ব্যান হয়নি।
প্রায়ই দেখা যায় অমুকের একাউন্ট ব্যান হয়েছে। এটা কেন হয়? আমার পিসি আমারি। এখানে অন্য কেউ লগইন করেনা, আমিও অন্য কোনো পিসি তে লগইন করিনা। হয়তো সেই জন্যেই এখনো টিকে আছে।

* কাজ দেয়ার জন্যে বায়ারকে বেশি চাপাচাপি করবেন না। আপনি তার মন মতো কাজ জানলে সেই আপনাকে চাপ দিবে। সবসময় প্রফেশনাল ভাবটা বজায় রাখবেন।

* অনেকেই আছে শুধু ফাইভার -রেই পড়ে থাকে। আরো কত যে মার্কেটপ্লেস আছে, তারা খোঁজ নেয় না। যদিও আমার লাক সবচেয়ে ভালো ছিল Elance -এ। যাই হোক দেখো Upwork .
ফিভার-এ আপনি যা $৫ দিয়ে করেন, ওখানে আরো বেশি পাবেন।

* যে কাজই এপলাই করেন না কেন, চেষ্টা করবেন সাথে কিছু স্যাম্পল দেয়ার, যদি ক্লায়েন্ট নিজ থেকে স্যাম্পল না দেয় , তাহলে তাকে স্যাম্পল শো করতে বলতে পারেন। তাহলে আপনার কাজ করতে সুবিধা হবে। তাছাড়া, অযথা তাকে করে দিলেন একরকম, সে আশা করে ছিল অন্যরকম।

* আপনি ছেলে হন বা মেয়ে হন সেটা বেপার না, তবে ফাইভার -এ একাউন্ট-এ একটা সুন্দরী মেয়ের ছবি দিলে রেসপন্স পাওয়া যায় বেশি। বুঝতেই পারছেন। নিজের পার্সোনাল অভিজ্ঞতা থেকে জানলাম এটা।

*কয়েক জন ক্লায়েন্ট কাজ ডেলিভারির পর পেমেন্ট না করেই ভাগছে। এক্ষেত্রে বেশি হতাশ হওয়ার কিছু নেই। মনে করবেন ওটা আপনার কাজের এক্সারসাইজ ছিল। আর কিছুনা।

* জব এপলাই করার সময় এমন ভাবে প্রপোসাল লিখবেন যেটা দেখে আপনার নিজেরই মনে হবে আপনার কাজ পাওয়ার আশা অন্যদের চেয়ে একটু হলেও বেশি।
ক্লায়েন্টের সবগুলো পয়েন্ট ভালো করে পরে তারপরে সেইভাবে প্রপোসাল লিখবেন। চেষ্টা করবেন আপনার কাজের সিমিলার কোনো স্যাম্পল দিতে, অথবা হাতে যদি সময় থাকে সে যা চায় তার হালকা পাতলা একটা নমুনা তাকে বানিয়ে দিতে পারেন। তাহলে সে বুঝবে আপনার গুরুত্ব কতটুকু।

* অনেক সময় বাজেট ঝামেলা করে। ওখানে যাই দেয়া থাকুক তার উপর ভরসা করেই যে আপনাকে কাজ করতে হবে এমন কোনো কথা নেই। আপনার যদি মনে হয় এটা আরো কম বাজেটে করা যায়, তাকে খোলামেলা বলুন, যদি বেশি লাগে তাও বলুন। ফিক্সড অর hourly সবক্ষেত্রেই একই কথা। আমি $৩ ডলারেও কাজ করছি। আবার $৪০ দিয়েও করছি।

* Upwork -এ মাসে ৬০ তা কানেক্ট দেয় , মানে গড়ে ৬০ তা জব এপলাই করা যায়। আর ফাইভারে প্রতিদিন ১০ তা করে মাসে ৩০০ তা জব এপলাই করার চান্স আছে আপনার। তারপরেও যদি কাজ না পান তাহলে সেটা আপনার ব্যর্থতা। ভালো করে খোঁজ খবর নিন এই বেপারে। নতুন নতুন কাজ শিখুন প্রতিদিন। মাত্র একটা সফটওয়্যার জানলেই হবেনা। সাথে আরো কয়েকটাও জানতে হবে।

মনে করুন, আপনি Sony Vegas জানেন, এটা দিয়েই যে কোনো টাইপের ভিডিও বানাতে পারেন, তাতে কি ? আফটার ইফেক্টস শিখুন, তারপর চেষ্টা করুন দুইটা দিয়ে কিভাবে এখন ভিডিও বানানো যাবে। আপনি যত বেশি ইনপুট use করবেন, আউটপুট ততোবেশীই ভালো হবে। আমি আগে উইন্ডোস মুভি মেকার দিয়ে শুরু করি সেই ২০০৯-এ। এখন Vegas, AE, Proshow Producer সব একসাথে বেবহার করি। একেকটা পার্ট একেকটা সফটওয়্যার থেকে। ফাইনাল আউটপুট যখন একসাথে হবে অবসসই ভালো দেখাবে।

* বুদ্ধি থাকলে টাকা দিয়ে কোনো কোর্স করা লাগেনা। সব Youtube -এই আছে। কোনো খানে আটকে গেলেন? সার্চ দিয়ে বের করে নিন। হাতের কাছে এই সুবিধা আর কে দেবে?
* ইন্টারনেট মার্কেটিং এর অনেক কিছুই জানি, সব ডিপার্টমেন্ট থেকেই কিছু না কিছু ইনকাম করছি। কেউ কিচ্ছু শিখায়নি। সব নিজের আগ্রহে ইন্টারনেট থেকেই পাইছি। আগ্রহ থাকলে ফ্রি তাই শিখতে পারবেন, আর নিজের আগ্রহ না থাকলে টাকা দিয়ে শিখেও লাভ হবেনা বেশিদিন। কারণ আপনি শুধু ঐটুকু সিলেবাসের মধ্যেই পড়ে থাকবেন।

* চেষ্টা করুন ক্লায়েন্টের সাথে ভালো বেবহার করতে, সে যাই করুক না কেন আপনি আপনার লাইনেই থাকুন। কারণ সম্পর্ক ভালো থাকলে অদূর ভবিষ্যতে আপনার কথা তার মনে থাকবেই। এমন কয়েকটা ক্লায়েন্ট আছে আমার যারা এখন পার্মানেন্ট। একজন আছে প্রতিমাসে ৪ তা থেকে ৬ তা ভিডিও করা লাগবে। $১৫ করে একেকটা। সো মাসে প্রায় $১০০ অটো কনফার্ম। এরকম যদি ২-৩ তা ক্লায়েন্ট ম্যানেজ করে নিতে পারেন, তাহলে কিছু টাকা এমনিতেই আসবে প্রতি মাসে।
বাকি ক্ষেত্রে আরো নতুন নতুন জব এপলাই করুন।

* আমি সপ্তাহে যে কোনো একদিন ট্রাই করি এপলাই করার। যতগুলো পারি করি। ১০ তা ২০ তা এপলাই করে যদি ২-৩ টার আশা করা যায় খারাপ কি!

* আপনি যে ক্যাটাগরিতেই কাজ করেন না কেন, সবসময় প্রাকটিস করুন অবসর সময়ে। যাই বানান না কেন, সব সেভ করে রাখুন কোথাও। কারণ এগুলাই আপনার স্যাম্পল। আর এসব ফ্রী সাম্পলই আপনাকে আসল টাকা এনে দেবে।

* সবসময় ক্লায়েন্ট কে রিভিউ দেয়ার কথা বলবেন না। যে দেয়ার সে দিবেই।

* অনেকেই গিগের জন্যে ভিডিও নিয়ে ঝামেলায় পড়েন। এক্ষেত্রে বলতে পারেন, আমি করে দেয়ার চেষ্টা করবো।

# শেষ কবে বাবা মায়ের কাছ থেকে হাত খরচ নিচ্ছি মনে নেই। এভাবেই এখন চলছে। দেখি ইচ্ছা আছে সবসময় freelancing সাথে রাখার। ডিমান্ড দিন দিন বাড়বেই। আর সেই সাথে আপনাকেও এগিয়ে যেতে হবে।
আপনি যে মার্কেটপ্লেসেই থাকুন না কেন সবার আগে সেই প্লেস সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে। আপনি তাদের টার্মস এন্ড কন্ডিশনই না জানেন তাহলে সমস্যাতো হবেই। বিপদ আপদের বন্ধু হলো গুগল। এর থেকে ভালো হেল্প অন্য কেউ করতে পারবেনা।

এখানে অনেকেই আছেন, যারা সবসময়ই হেল্প করে। কিছু জানার থাকলে অবশ্যই এখানে লিখবেন। কেউ না কেউ জবাব দেবেই।

আরো অনেক কিছুই বলতে চাইসিলাম, কিন্তু বেশি বড় হলে আবার বিরক্তিকর মনে হবে।

লেখকঃ Yousuf Hassan

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *