ফাইভার টিপস এন্ড মটিভেশন:

ফাইভার টিপস এন্ড মটিভেশন:

আসসালামু আলাইকুম
আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমি তপু রায়হান, ফাইভারের একজন নতুন সদস্য। আমি কোন এক্সপার্ট কিংবা কোন টপ রেটেড সেলার নই। আমি মাত্র ২০ টি কাজ কমপ্লিট করেছি।

আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা যা আমি মনে করি”

আমরা ফাইভারের গিগ বানানোর চেয়ে তার মার্কেটিং নিয়ে বেশি মাতামাতি করি যা ঠিক নয়। মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে দেখা যায় বেশির ভাগই স্প্যামিং এর মধ্যে পড়ে।
আপনি গিগ শেয়ারিং এর মাধ্যমে হয়তো আপনার গিগের ইমপ্রেশন, ভিউ বাড়াতে পারবেন। কিন্তু তার সাথে অর্ডার পাওয়ার কোন মানে নেই।

আমাদের শ্রদ্ধেয় Golam Kamruzzaman ভাই কিছুদিন আগে গিগ মার্কেটিং এর একটা স্ট্যাটিসটিক দিয়েছিলেন যা পড়ে আমর এই ভুল ধরা পড়েছে।

আমিও আগে মার্কেটিংকে বেশি প্রাধান্য দিয়েছিলাম। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, তার পর আমি আমার সব গিগ খুব ভালোভাবে নিজেকে বায়ার ভেবে পড়লাম। আসলে আমার নিজেরেই ভালো লাগেনাই। দিলাম ডিলিট করে।

প্রায় ২ সপ্তাহ কোন গিগ ছিলোনা। দুই সপ্তাহ শুধু নলেজ গেইন করেছি (আমার এই গ্যাপ দেয়াটা ঠিক হয়নি কিন্তু আমি একসাথে দুই কাজ করতে পারিনা, তখন আমার মূল উদ্দেশ্য ছিল কিভাবে আমি ভালো গিগ বানাতে পারবো।)।

বর্তমান অবস্থা:

গত এক সপ্তাহ আগে আমি গিগ বানিয়েছি। এবং আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে। আমি গিগ প্রকাশের পরের দিনেই একটা অর্ডার পাই। আমি তাতে খুব খুশি এবং বায়ার আমার গিগে প্রশংসা করেছেন।

টিপস:
গিগ বানানোর মূল মন্ত্র হচ্ছে-
১। যে কোন একটা টপিক/সার্ভিস/প্লাটফর্ম নির্ণয় করে স্পেসিফিক কাজ করা। গিগে হ য ব র ল সার্ভিস না দেয়া ।

২। স্ট্রেইট আকারে সব লেখা। যা লিখছেন সোজা কথায় লিখতে হবে। আপনি নতুন/ আপনার কাজ নাই, বায়ারকে এগুলো বলা/বোঝানো যাবে না। আপনার পার্সোনালিটি ঠিক রাখবেন।

৩। গিগের র‌্যাংকিং এর জন্য ৩ টি জিনিসের উপর জোড় দিবেন।
গিগ টাইটেল
গিগ ট্যাগ
গিগ ডেসক্রিপশন

৪। গিগ বানানোর আগে আপনার কমপিটিটর সম্পর্কে ধারণা নিন।

৫। পরিপূর্ণ গিগ বানানো হলে, টুইটার, লিংকডিন, গুগল প্লাস আর কুওরাতে মার্কেটিং করুন।

আশা করি এভাবে গিগ সাজালে আপনি কাজ পাবেন  ।

 

লেখকঃ Md. Topu Raihan

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *